photo

Kazi Nazrul Islam

Poet
Date of Birth : 24 May, 1899
Date of Death : 29 Aug, 1976
Place of Birth : Churulia, India
Profession : Poet
Nationality : Bangladeshi

Kazi Nazrul Islam (কাজী নজরুল ইসলাম) was a Bengali poet, writer, musician, and is the national poet of Bangladesh. Nazrul is regarded as one of the greatest poets in Bengali literature.

Early life

Nazrul Islam was born on Wednesday 24 May 1899 in the village of Churulia, Asansol Sadar, Paschim Bardhaman district of the Bengal Presidency (now in West Bengal, India). He was born into the Bengali Muslim Taluqdar family of Churulia and was the second of three sons and a daughter. Nazrul Islam's father Kazi Faqeer Ahmed was the imam and caretaker of the local Pirpukur mosque and mausoleum of Haji Pahlawan.Nazrul Islam's mother was Zahida Khatun. Nazrul Islam had two brothers, Kazi Saahibjaan and Kazi Ali Hussain, and a sister, Umme Kulsum. He was nicknamed Dukhu Miañ (দুখু মিঞা) literally, 'the one with grief'). Nazrul Islam studied at a maktab and madrasa, run by a mosque and a dargah respectively, where he studied the Quran, Hadith, Islamic philosophy, and theology. His father died in 1908 and at the age of ten, Nazrul Islam took his father's place as a caretaker of the mosque to support his family. He also assisted teachers in the school. He later worked as the muezzin at the mosque.

Quotes

Total 101 Quotes
জাতি-ধর্ম-কালকে অতিক্রম করিতে পারিয়াছে যাহাদের যৌবন, তাহারাই আজ মহামানব, মহাত্মা, মহাবীর।
সম্মুখে আমাদের পর্বত প্রমাণ বাধা, নিরাশার মরুভূমি, বিধি-নিষেধের দুস্তর পাথার; এই সব লংঘন করিয়া, অতিক্রম করিয়া যাইবার দুঃসাহসিকতা যাহাদের, তাহারা তরুণ।
আমরা যৌবনের পূজারী, নব নব সম্ভাবনার অগ্রদূত, নব নবীনের নিশানবর্দ্দার।
ঝঞ্ঝার নূপুর পড়িয়া নৃত্যায়মান তুফানের মতো আমরা বহিয়া যাইবো। যাহা থাকিবার তাহা থাকিবে, যাহা ভাঙিবার তাহা আমাদের চরণাঘাতে ভাঙিয়া পড়িবেই।
কত কাজ তোমাদের- ধরণীর দশদিক ভরে কত ধূলি, কত আবর্জ্জনা, কত পাপ, কত বেদনা- তোমরা ছাড়া কে তার প্রতিকার করিবে? তোমাদের আত্মদানে, তোমাদের আয়ূর বিনিময়ে হবে তার মুক্তি।
সকল বিশ্বকে, সকল সৃষ্টিকে জানব, বুঝব ও উপলদ্ধি করব- এই আত্মবিশ্বাস আমাদের তরুণদের জীবনে রূপায়িত হোক
নদীতে নুড়ি থাকে, এক ফোঁটা জল সে পায় না। কারণ তার অন্তর শূণ্য নয়। এমন করে আমাদের অন্তর মুক্ত করে, বৃহৎকে জীবনে বরণ করে আনতে হবে।
সকল ভীরুতা, দূর্বলতা, কাপুরুষতা বিসর্জ্জন দিতে হবে। ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে নয়, ন্যায়ের অধিকারের দাবীতেই আমাদিগকে বাঁচতে হবে
আজ আমাদের আলস্যের, কর্মবিমুখতার পৌরুষের অভাবেই আমরা হয়ে আছি সকলের চেয়ে দীন।
“ আসে বসন্ত ফুল বনে সাজে বনভূমি সুন্দরী; চরণে পায়েলা রুমুঝুমু মধুপ উঠিছে গুঞ্জরি ”